বিয়ের দাবিতে প্রেমিকার আমরন অনশন

অথর
জে এন এস নিউজ ডেক্স :   কুষ্টিয়া
প্রকাশিত :৩ আগস্ট ২০২১, ৬:০৪ অপরাহ্ণ | পঠিত : 54 বার
বিয়ের দাবিতে প্রেমিকার আমরন অনশন

বরিশালের হিজলা উপজেলায় বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার বিষ নিয়ে দু’দিন পর্যন্ত অনশন করছেন। সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার গুয়াবাড়িয়া ইউনিয়নের ১ নম্বর ওয়ার্ড পত্তনীভাঙ্গা গ্রামের জনৈক ভুক্তভোগী বিয়ের দাবিতে পার্শ্ববর্তী ৩ নম্বর ওয়ার্ড ঘোষেরচর গ্রামের খোকন বেপারীর ছেলে নবীন বেপারীর ঘরে উঠে। এ সময় নবীন বেপারীকে বাড়িতে পাওয়া যায়নি। এ ঘটনায় অনশনকারীর সঙ্গে আলাপকালে জানান, র্দীঘ ৪ বছর যাবৎ নবীনের সাথে প্রেমের সর্ম্পক চলছে। প্রেমের সর্ম্পক উভয় পরিবার জানতো। নবীন পারিবারিক ভাবে বিয়ের প্রস্তাব দিলে নবীনের মা আমার পরিবারের কাছে যৌতুক দাবি করলে তা আমার পরিবার প্রত্যাখান করে। গত ৩১ জুলাই আমি জানতে পারি নবীনের মা নবীনকে বিয়ের জন্য মুলাদীর খেজুরতলা গ্রামের এক মেয়ের সাথে বুধবার বিয়ের দিন ধার্য করেছেন। এ সংবাদ পেয়ে গত মঙ্গলবার আমি বিয়ের দাবিতে নবীনের ঘরে উঠেছি। আমাকে যদি নবীনের সাথে তার পরিবার বিয়ে না দেয় আমি এই ঘরের মধ্যে বিষপান করে মারা যাব। এ বিষয়ে নবীনের মা জাহানারা বেগম বলেন, ছেলে ও মেয়ের প্রেমের সম্পর্ক আমরা জানি। কিন্তু মেয়ের পরিবারের সাথে বনিবনা না হওয়ায় আমি আমার ছেলের অন্যত্র বিয়ে ঠিক করেছি। আমি এই মেয়েকে আমার ছেলের বউ বানাতে চাই না। ভুক্তভোগীর পিতা খলিল ঘরামী বলেন, আমার মেয়ে নবীনকে ভালবাসতো, তাই আমরা মেয়ের দিকে তাকিয়ে নবীনের পরিবারকে বিয়ের প্রস্তাব দিলে তারা যৌতুক দাবি করে। তখন আমি তাদের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেই। মেয়ে যেহেতু আমাদের মানসম্মান ক্ষুন্ন করে চলে গেছে, তাই আমি ঐ মেয়ের পরিচয় দিবো না। এ ঘটনা সর্ম্পকে স্থানীয় ৩ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যে মো. ফয়সাল ও ১ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মো. দুলাল বেপারী জানান, ঘটনার সংবাদ পেয়ে ঘটনা স্থানে গিয়ে উভয় পরিবারকে ডেকে বিয়ে পরানো জন্য সমঝোতার চেষ্টা করে ব্যথ হই। হিজলা থানা ওসি (তদন্ত) তারিক হাসান রাসেল জানান, থানায় এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ দেওয়া হয়নি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

শেয়ার করে  সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়।


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 + nine =